বাণিজ্য

জিআই সনদ পেল নতুন ৭ পণ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্যের সনদ পেয়েছে নতুন ৭টি পণ্য। বিশ্ব মেধাসম্পদ দিবস উপলক্ষে নিবন্ধন পাওয়া সাতটি জিআই পণ্যের সনদ সংশ্লিষ্টদের হাতে তুলে দেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।

বৃহস্পতিবার (৩১ আগস্ট) রাজধানীর একটি হোটেলে শিল্প মন্ত্রণালয়ের পেটেন্ট, শিল্প-নকশা ও ট্রেডমার্কস অধিদফতর আয়োজিত এক সেমিনারে এই সনদ প্রদান করেন শিল্পমন্ত্রী।

তিনি বলেন, নতুন ৭টি পণ্যকে জিআই সনদ দেয়া হয়েছে। এগুলো হলো-

* রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জের ফজলি আম

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: ফল গবেষণা কেন্দ্র, বিনোদপুর ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি অ্যাসোসিয়েশন
নিবন্ধিত হয়: ৯ মার্চ ২০১৭
সনদ প্রাপ্তি: ৩১ আগস্ট ২০২৩

* বাংলাদেশের শীতল পাটি

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক)
নিবন্ধিত হয়: ১৬ মার্চ ২০২১
সনদ প্রাপ্তি: ৩১ আগস্ট ২০২৩

* বগুড়ার দই

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি, বগুড়া
নিবন্ধিত হয়: ১ জানুয়ারি ২০১৮
সনদ প্রাপ্তি: ৩১ আগস্ট ২০২৩

* শেরপুরের তুলশীমালা ধান

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: জেলা প্রশাসক, শেরপুর
নিবন্ধিত হয়: ১১ এপ্রিল ২০১৮
সনদ প্রাপ্তি: ৩১ আগস্ট ২০২৩

* চাঁপাইনবাবগঞ্জের ল্যাংড়া আম

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্র, চাঁপাইনবাবগঞ্জ
নিবন্ধিত হয়: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
সনদ প্রাপ্তি: ৩১ আগস্ট ২০২৩

* চাঁপাইনবাবগঞ্জের আশ্বিনা আম

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্র, চাঁপাইনবাবগঞ্জ
নিবন্ধিত হয়: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
সনদ প্রাপ্তি: ৩১ আগস্ট ২০২৩

* নাটোরের কাঁচাগোল্লা

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: জেলা প্রশাসন, নাটোর
নিবন্ধিত হয়: ৩০ মার্চ ২০২৩
সনদ প্রাপ্তি: ৩১ আগস্ট ২০২৩

এখন পর্যন্ত মোট জিআই সনদ পাওয়া পণ্যের সংখ্যা ১৭টি বলে জানান মন্ত্রী। বাকি ১০টি জিআই পণ্য হলো-
* জামদানি

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক)
নিবন্ধিত হয়: ১ সেপ্টেম্বর ২০১৫
সনদ প্রাপ্তি: ১৭ নভেম্বর ২০১৬

* ইলিশ

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: মৎস্য অধিদফতর।
নিবন্ধিত হয়: ১৩ নভেম্বর ২০১৬
সনদ প্রাপ্তি: ১৭ আগস্ট ২০১৭

* চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাত আম

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট।
নিবন্ধিত হয়: ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
সনদ প্রাপ্তি: ২৭ জানুয়ারি ২০১৯

* বিজয়পুরের সাদা মাটি

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, নেত্রকোনা।
নিবন্ধিত হয়: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
সনদ প্রাপ্তি: ১৭ জুন ২০২১

* দিনাজপুর কাটারীভোগ

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট
নিবন্ধিত হয়: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
সনদ প্রাপ্তি: ১৭ জুন ২০২১

* কালিজিরা

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট
নিবন্ধিত হয়: ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
সনদ প্রাপ্তি : ১৭ জুন ২০২১

* রংপুরের শতরঞ্জি

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক)
নিবন্ধিত হয়: ১১ জুলাই ২০১৯
সনদ প্রাপ্তি: ১৭ জুন ২০২১

* রাজশাহী সিল্ক

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ড
নিবন্ধিত হয়: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭
সনদ প্রাপ্তি: ১৭ জুন ২০২১

* ঢাকাই মসলিন

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড
নিবন্ধিত হয়: ২ জানুয়ারি ২০১৮
সনদ প্রাপ্তি: ১৭ জুন ২০২১

* বাগদা চিংড়ি

আবেদনকারী ও সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান: বাংলাদেশ মৎস্য অধিদফতর
নিবন্ধিত হয়: ৪ জুলাই ২০১৯
সনদ প্রাপ্তি: ২৪ এপ্রিল ২০২২

মূলত কোনো একটি দেশের মাটি, পানি, আবহাওয়া এবং ওই জনগোষ্ঠীর সংস্কৃতি যদি কোনো একটি পণ্য উৎপাদনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে তাহলে সেটিকে ওই দেশের ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য (জিআই) হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়। অর্থাৎ সেই পণ্য শুধু ওই এলাকা ছাড়া অন্য কোথাও উৎপাদন করা সম্ভব নয়।

কোনো পণ্য জিআই স্বীকৃতি পেলে পণ্যগুলো বিশ্বব্যাপী ব্র্যান্ডিং করা সহজ হয়। পণ্যগুলোর আলাদা কদর থাকে। ওই অঞ্চল বাণিজ্যিকভাবে পণ্যটি উৎপাদন করার অধিকার এবং আইনি সুরক্ষা পায়।
জিআই হলো ভৌগোলিক নির্দেশক চিহ্ন যা কোনো পণ্যের একটি নির্দিষ্ট উৎপত্তিস্থলের কারণে এর খ্যাতি বা গুণাবলী নির্দেশ করতে ব্যবহৃত হয়। সাধারণত জিআইতে উৎপত্তিস্থলের নাম (শহর, অঞ্চল বা দেশ) অন্তর্ভুক্ত থাকে। জিআই (GI) এর পূর্ণরূপ হলো (Geographical indication) ভৌগোলিক নির্দেশক। WIPO (world intellectual property organization) হলো জিআই পণ্যের স্বীকৃতি দানকারী প্রতিষ্ঠান।

কেন দেয়া হয়?
কোনো নির্দিষ্ট স্থানের কোনো পণ্য খুব নামকরা হলে এবং সেই নামের ওপর বিশ্বাস করেই পণ্যটি কেনা ও ব্যবহার করার গুরুত্ব দিতেই এই জিআই সনদ দেয়া হয়। প্রতিটি পণ্যের সঙ্গে সে স্থানের নাম যুক্ত করা হয়। যেমন- ঢাকাই জামদানি এক সময় শুধু ঢাকার কারিগররাই উৎপাদন করতে পারতেন। আর ঢাকার আবহাওয়াও এ জামদানি তৈরির জন্য উপযোগী ছিল। ফলে যুগের পর যুগ তারা এ জামদানি তৈরি করে এসেছে। যা পৃথিবীজুড়ে স্বীকৃত।

এবি/ওশিন

Copyright © Amarbangla
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

স্কাউট লিডার মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় স্কাউটস্ এর সম্পাদক ও প...

ইসরাইলি বিমান হামলায় নিহত ৭১

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : গাজার পশ্চিম খান ইউনিসের আল-মাওয়াসি এলা...

সরকারকে হটানো এখন প্রধান চ্যালেঞ্জ

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভোটারবিহীন সরকারকে হটানো আমাদের এখন প্রধা...

প্রান্তিক মানুষের চিকিৎসা নিশ্চিত করব

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রান্তিক মানুষের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করা...

কোটা আন্দোলনে অশুভ শক্তি নেমেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : কোটা আন্দোলনে অশুভ শক্তি নেমেছে মন্তব্য ক...

স্কাউট লিডার মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় স্কাউটস্ এর সম্পাদক ও প...

শেখ হাসিনা ফুটবল টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন ইসলামী ব্যাংক

নিজস্ব প্রতিবেদক : শেখ হাসিনা আন্তঃব্যাংক ফুটবল টুর্নামেন্ট-...

ফুটবলে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে

নিজস্ব প্রতিবেদক : সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও জনপ্রিয় খেলা...

বৃষ্টির পানিতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ৪ জনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর বৃষ্টির পানিতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়...

দ. আফ্রিকায় সড়কে বাংলাদেশি নিহত

প্রবাস ডেস্ক : দক্ষিণ আফ্রিকায় সড়ক দুর্ঘটনায় মোশারফ হোসেন মি...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
খেলা